বিএনসিসি

১৯২১ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পরে, কোর ভারতীয় দেশরক্ষা বাহিনী আইন, ১৯২৩ অনুসারে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে বিএনসিসি গঠিত হয়। ১৯২৭ সালের নভেম্বর মাসে ক্যাপ্টেন ই. গ্রুম ১৬ জন শিক্ষক এবং ১০০ জন ছাত্রকে প্রথম সাহায্যকারী কোরের সামরিক প্রশিক্ষণে দেওয়ার ব্যবস্থা নেন। ১৯২৮ সালের জুন মাসে আনুষ্ঠানিকভাবে ইউনিভার্সিটি ট্রেইনিং কোর (ইউটিসি) নামে এটি প্রতিষ্ঠিত করা হয়।[১] এটি ছিল ইউটিসি'র ১২টি ইউনিটের একটি।

১৯৪২ সালে, একক কোম্পানিতে উন্নিত হয় এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ডঃ হাসান মাহমুদ কে অবৈতনিক প্রতিনিধি কর্নেল হিসাবে সংস্থিত করে কোম্পানির ভার দেওয়া। ১৯৪৩ সালে এর নাম বিশ্ববিদ্যালয় অফিসার প্রশিক্ষণ কোর এ পরিবর্তিত হয়। ১৯৪৬ সালে প্রথম বার্ষিক ক্যাম্প শিলং এ হয়। ১৯৫০ সালে, ৬২৫ ক্যাডেট এবং ৪০ কর্মকর্তাকে পদোন্নতি দিয়ে এই কোম্পানি ব্যাটালিয়ন হয়েছে। পাকিস্তান সরকার ৩০শে জানুয়ারি ১৯৫৩ সালে ইউওটিসি এর কার্যক্রম নিষিদ্ধ করে দেয়, কিন্তু তার কাজ-কর্ম ছাত্র বিক্ষোভ পরে ১৯৬৬ সালে আবার শুরু হয়। পাকিস্তান ক্যাডেট কোর (পিসিসি) এবং জুনিয়র ক্যাডেট কর্পস (জেসিসি) কলেজ এবং স্কুল (৯ ও ১০) ছাত্রের জন্য গঠিত ছিল। ১৯৭১ সালের পর, তার ক্যাডেট কোর অস্তিত্ব ছিল, কিন্তু 'বাংলাদেশ ক্যাডেট কোর' নামটি 'পাকিস্তান ক্যাডেট কোর' এর জন্য প্রতিস্থাপিত হয়। ১৯৭১ সালের পরে ইউওটিসি স্বীকৃত ছিল, তবে তার কাজ-কর্ম ১৯৭৫ সাল পর্যন্ত প্রায় বন্ধ ছিল। ৩১শে মার্চ ১৯৭৬ সালে, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে তিনটি পদাতিক ডিভিশন প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। ২৩শে মার্চ ১৯৭৯ সালে, রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান একটি সরকারি আদেশ দ্বারা ইউওটিসি, বিসিসি এবং জেসিসি, দের সংগঠিত করে বিএনসিসি প্রতিষ্ঠিত করেন।